ইকোলজি

 

প্রারম্ভিক আলোচনা: এই অধ্যায় থেকে সহজ কিছু প্রশ্ন পরীক্ষাতে আসে। একটু পড়ে রাখলেই উত্তর করা সম্ভব।

অধ্যায় সারবস্তু:

১. জার্মান জীববিজ্ঞানী H. Relter সর্বপ্রথম “Ecology” শব্দটি ব্যবহার করেন। (১৮৬৬)

২. Ernest Haeckel ইকোলজির একটি সংজ্ঞা দেন। (১৮৮৬)

৩. অটোইকোলজিতে নির্দিষ্ট প্রজাতির সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করা হয়,

সিনইকোলজিতে পরিবেশের নানা গোষ্ঠীর সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করা হয়।

৪. পপুলেশন হল একই প্রজাতির সদস্য সমষ্টি। অনেকগুলো পপুলেশন মিলে একটা কমিউনিটি বা সম্প্রদায় তৈরি করে।

৫. উদ্ভিদের ক্রমাগমন প্রধানত দুই প্রকার। প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি।

৬. হাইড্রোসেরিতে উদ্ভিদ ক্রমাগমনের সূচনা হয় পানিতে

জেরোসেরিতে ক্রমাগমনের সূচনা হয় মরু অঞ্চলে

৭. “সাভানা” স্থলজ ইকোসিস্টেম-এর উদাহরণ।

৮. ইকোসিস্টেম শব্দটি A.G. Tansely নামক এক ব্রিটিশ পরিবেশবিজ্ঞানী ১৯৩৫ সালে প্রথম ব্যবহার করেন।

৯. প্রাইমারি খাদক হল যারা সরাসরি উৎপাদক তথা গাছপালা, ঘাস খাদ্যরূপে গ্রহণ করে, যেমন = গরু, হরিণ, খরগোস, জুপ্ল্যাঙ্কটন (ফাইটোপ্ল্যাঙ্কটনকে খায়)

১০. সেকেন্ডারি খাদক = কুকুর, বিড়াল, নেকড়ে, জলচর বীটল

১১. টারশিয়ারি খাদক = বাঘ, সিংহ, কুমির, মাছ ইত্যাদি। (সুন্দরবনের ইকোসিস্টেম-এ কুমির সেকেন্ডারি খাদক)

১২. বিয়োজকের কারণে ইকোসিস্টেম সচল থাকে।

১৩. পৃথিবীতে আসা সূর্য শক্তির মাত্র ০.০১% শক্তি সালোকসংশ্লেষণ প্রক্রিয়ায় সঞ্চিত হয়।

১৪. শক্তিপ্রবাহ একমুখী। ইকোসিস্টেম-এ যেমন বিয়োজক থেকে রাসায়নিক উপাদান আবার উৎপাদক ব্যবহার করতে পারে, তেমনটা শক্তি প্রবাহে সম্ভব নয়।

১৫. সুন্দরবনে মূল ম্যানগ্রোভ গাছ রয়েছে প্রায় ৫০ প্রজাতির।

১৬. সংখ্যার পিরামিডে ভুমিতে জীবকূলের সংখ্যা বেশি থাকে ও শীর্ষে সবচেয়ে কম থাকে।

১৭. জীবভর বা বায়োমাস-এর পিরামিড- ভূমিতে উৎপাদকদের ওজন সর্বাধিক থাকে, যা সর্বোচ্চ খাদক স্তরে ক্রমান্বয়ে হ্রাস পায়। (উৎপাদকদের ব্যক্তিগত ওজন কম থাকলেও সংখ্যায় অনেক বেশি থাকে, তাই সব মিলিয়ে উৎপাদকদের ওজন সর্বাধিক থাকে, আর সর্বোচ্চ খাদকের ওজন ব্যক্তিগত ভাবে বেশি থাকলেও সামগ্রিক ভাবে সংখ্যায় কম থাকার জন্য ওজন কম)

১৮. শক্তির পিরামিড-এও উৎপাদক স্তর বা ভূমিতে শক্তির পরিমাণ বেশি থাকে এবং শীর্ষে বা খাদক স্তরে পুষ্টিস্তরে শক্তির পরিমাণ থাকে সর্বনিম্ন। (পূর্বে উল্লেখিত কারণ)

১৯. Nostoc, Anabaena, প্রভৃতি নীলাভ শৈবাল নাইট্রোজেন সংবন্ধন করে।

২০. নাইট্রিফাইং ব্যাকটেরিয়া অ্যামোনিয়া থেকে নাইট্রেট তৈরি করে।

এবং ডিনাইট্রিফাইং ব্যাকটেরিয়া নাইট্রেট থেকে মুক্ত নাইট্রোজেন তৈরি করে।

২১. ভূ-পৃষ্ঠের উর্ধ্বে ৩০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বায়ুমণ্ডল বিস্তৃত।

২২. অ্যাসিড বৃষ্টিতে পানির সাথে নাইট্রিক ও সালফিউরিক অ্যাসিড থাকে।

২৩. শব্দ দূষণ বলতে ৫০ ডেসিবেল-এর চেয়ে উচ্চ মাত্রার শব্দকে বোঝায়।

Twitter icon
Facebook icon
Google icon
StumbleUpon icon
Del.icio.us icon
Digg icon
LinkedIn icon
MySpace icon
Newsvine icon
Pinterest icon
Reddit icon
Technorati icon
Yahoo! icon
e-mail icon